Sufi Faruq (সুফি ফারুক)

আর একটি আশুরা চলে গেল। নোট

আর একটি আশুরা চলে গেল।

এ নিয়ে আমাদের গণমাধ্যমের তেমন কোন আয়োজন দেখলাম না।
অবশ্য আজকাল সাধারণ মুসলিমদের জন্য প্রায় প্রতিটি যায়গা কারবালা, প্রতিদিনই আশুরা। আর ক্ষমতার মালিক ও খেলোয়াড় মুসলিমরা কারবালার পরেও যেমন সুখে ছিল আজও তেমনই আছে। সব এজ ইউজুয়াল। এ আর নতুন কি?
হয়তো এ উপলক্ষে কোথাও বোমা ফুটলে কিছু এয়ার টাইম পেতো।

আমার মনে হয় এই ভয়াবহ সময়ে আশুরা নিয়ে গণমাধ্যমে আরও আলোচনা দরকার, আরও বড় আয়োজন দরকার। বিশেষকরে মুসলিম ইনার্জেন্সের এই সময়ে। বিশ্বব্যাপী জঙ্গিবাদ ও ধর্মীও রাজনীতির জাঁতাকলে পিষতে থাকা সাধারণ মুসলিমদের এরকম অসহায় সময়ে।

কারণ আশুরা শুধু একটি শোকাবহ দিন না, মুসলিম ইতিহাসের মোড় ঘুরিয়ে দেবার দিন।
ওই দিনের সাথে যোগসূত্র আছে কওম হিসেবে আমাদের আজকের এই দুরবস্থার অনেক গুলো কারণের। যোগসূত্র আছে অনেক অনৈসলামিক (কিছু ক্ষেত্রে ইসলাম বিরোধী) বিষয়কে ইসলামের নামে বৈধতা দেবার থিওরি সৃষ্টির, আছে দ্বীন ইসলাম কে ছাপিয়ে রাজনৈতিক ইসলাম নামে নতুন একটি ডকট্রিন সৃষ্টির। যোগ সূত্র আছে ইসলামের নামে ছলচাতুরী, দখলদারিত্ব, ফিউডাল সিস্টেমকে বৈধতা দেবার। যোগসূত্র আছে জঙ্গিবাদকে ইসলামের নামে রাজ সমনে বৈধতা দেবার, সাধারণ নিরপরাধ মুসলিমদের হত্যাকারীদের ইসলামের রক্ষাকর্তা বনে যাবার, সত্যকে মিথ্যা আর মিথ্যাকে ঐতিহাসিক সত্য হিসেবে প্রতিষ্ঠা করার।

ইতিহাসের দায়মুক্তি নিশ্চিত না করলে ভবিষ্যৎ ইতিহাস আরও ভয়াবহ হয়। আমাদের বেলাতে তার এক্সেপশন হবে কেন?