Sufi Faruq Ibne Abubakar (সুফি ফারুক ইবনে আবুবকর)

ইয়ুথ বাংলা কালচারাল ফোরামের ‘স্বদেশ প্রত্যাবর্তন’ দিবসে রাষ্ট্রপতি অন্যান্য

মুক্তিযুদ্ধ মহাকাব্যের রচিয়তা বাঙ্গালী জাতির অবিসংবাদিত নেতা ও মুক্তিযুদ্ধের সর্বাধিনায়ক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান পাকিস্তানের বন্দীদশা থেকে মুক্তি পেয়ে ১৯৭২ সালের ১০ জানুয়ারী বেলা ১টা ৪১ মিনিটে সদ্য স্বাধীন বাংলাদেশের মাটিতে প্রত্যাবর্তন করেন।

জাতির পিতার স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবস উপলক্ষে নতুন প্রজন্মের মানবমণ্ডলীর সংগঠন ইয়ূথ বাংলা কালচারাল ফোরাম পক্ষ থেকে প্রথমবারের মত জাতীয় শিল্পকলা একাডেমীতে আয়োজন করেছে জাতির জনক বঙ্গবন্ধুর স্মৃতির নব জাগৃতির লক্ষে উদিয়মান তরুণ শিল্পী শেখ আসমানের “পুরুষোত্তম” শীর্ষক বিরল কাঠখোদাই চাপচিত্র প্রদর্শনীর। অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে ও অনুষ্ঠানের উদ্বোধনীতে ছিলেন জাতির পিতার প্রত্যক্ষ স্নেহ ও আর্শীব্বাষিক্ত চারণ রাজনীতির প্রবাদ-পুরুষ মহামান্য রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ।

বুধবার ইয়্যুথ বাংলা কালচারাল ফোরাম এর কেন্দ্রীয় সভাপতি,গুরুকুল প্রমুখ,কুষ্টিয়া জেলা আওয়ামীলীগের বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি সম্পাদক কুমারখালী- খোকসার কৃতিসন্তান তথ্য প্রযুক্তি বিশেষজ্ঞ সুফি ফারুক ইবনে আবুবকরের সভাপতিত্বে সন্ধ্যা ৬ টা থেকে উদ্বোধনী দিয়ে শুরু হয় অনুষ্ঠান । ‘পুরুষোত্তম” শীর্ষক বিরল কাঠখোদাই চাপচিত্র প্রদর্শনী’ অনুষ্ঠানটির উদ্বোধন করেছেন মহামান্য রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ।

বঙ্গবন্ধুর ‘স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবস’ উপলক্ষ্যে আলোচনা সভা এবং চিত্রকর্ম প্রদর্শনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি মহামান্য রাষ্ট্রপতি জনাব মো: আবদুল হামিদ কে ক্রেস্ট প্রদান ও অনুষ্ঠানের সভাপতি হিসেবে ক্রেস্ট গ্রহন করেন সভাপতি সুফি ফারুক ইবনে আবুবকর।

 

প্রধান অতিথির বক্তব্যে ‘স্বদেশ প্রত্যাবর্তন’ দিবসের কথা স্মরণে রাষ্ট্রপতি বলেন ,’দেশের প্রতি বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের যে ভালোবাসা, এমন অকৃত্রিম ভালোবাসার উদাহরন বিশ্বে বিরল। জীবন মৃত্যুর কঠিন চ্যালেঞ্জের ভয়ংকর অধ্যায় পার হয়ে সারা জীবনের স্বপ্ন, সাধনা ও নেতৃত্বের ফসল স্বাধীন সার্বভৌম বাংলাদেশে মহান নেতার প্রত্যাবর্তন সকল স্তরের জনগণকেই সীমাহীন আনন্দে উদ্বেলিত করে। ফাঁসির মঞ্চ থেকে ফিরে তৎকালীন রেসকোর্স ময়দানে বাংলার এই অবিসংবাদিত নেতা আবেগাপ্লুত কণ্ঠে বলেছিলেন যে তাঁর সারাজীবনের স্বপ্ন পূরণ হয়েছে। স্বাধীন ও সার্বভৌম বাংলাদেশের অভ্যুদয় ঘটেছে।’

তিনি আরও বলেছেন,’ আমি বিশ্বাস করি, আমরা যতদিন বঙ্গবন্ধুর আদর্শে অনুপ্রাণিত থাকবো, ততদিন আমাদের স্বাধীনতা ও সার্বভৌমত্ব অটুট থাকবে। আমাদের মহান নেতা সেদিন সবাইকে ‘সোনার বাংলা’ গড়ার ডাক দিয়েছিলেন। আমি আশা করি দেশপ্রেমের চেতনায় উদ্বুদ্ধ হয়ে কঠোর পরিশ্রমের মাধ্যমে আমরা সে লক্ষ্য অর্জনে সফল হবো।’

উল্লেখ্য ইয়ুথ বাংলা কালচারাল ফোরামের সভাপতি সুফি ফারুকের সভাপতিত্বে উক্ত প্রগ্রামে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন মহামান্য রাষ্ট্রপতি মহোদয়, বিশেষ অতিথি হিসেবে ছিলেন সংস্কৃতি মন্ত্রী আসাদুজ্জামান নুর সহ অন্যান্যরা।