Sufi Faruq Ibne Abubakar (সুফি ফারুক ইবনে আবুবকর)

শেখ কামাল সাংস্কৃতিক জোট, কুমারখালী”র আনুষ্ঠানিক পথচলা শুরু কুমারখালী উপজেলা, সংস্কৃতি সংরক্ষণ ও উন্নয়ন

শেখ কামাল সাংস্কৃতিক জোটের সদস্যদের সাথে সুফি ফারুক এর মত বিনিময়, কুমারখালী খোকসা, কুষ্টিয়া | Sufi Faruq's exchange views with Sheikh Kamal Cultural Alliance, Kumarkhali, Khoksa, Kushtia

শুরু হল “শেখ কামাল সাংস্কৃতিক জোট, কুমারখালী”র আনুষ্ঠানিক পথচলা। সকল লোকজ সাংস্কৃতিক ঐতিহ্য সংরক্ষন ও উন্নয়নের উদ্দেশ্যে সংগঠনটির জন্ম।

মুক্তিযুদ্ধের চেতনা ও বঙ্গবন্ধুর আদর্শে উজ্জীবিত কুমারখালী খোকসার প্রবীণ-নবীন মঞ্চ অভিনয় শিল্পী, পরিচালক ও কলাকুশলীরা মিলে শুরু করলেন সংগঠনটির আনুষ্ঠানিক পথচলা।

রবিবার সংগঠনটির প্রধান উপদেষ্টা কুষ্টিয়া জেলা আওয়ামীলীগের বিজ্ঞান ও প্রযুক্ত বিষয়ক সম্পাদক তথ্য প্রযুক্তিবিদ সুফি ফারুক এর আমন্ত্রণে ও সভাপতিত্বে প্রথম সভায় সকলে ঐক্যমত্যের ভিত্তিতে জনাব আব্দুল কুদ্দুস শাহ কে সভাপতি ও জনাব কামরুজ্জামান আয়ুবকে সাধারণ সম্পাদক মননিত করে ২১ স্বদেশ বিশিষ্ট কার্যনির্বাহী কমিটি গঠন করা হয়।

শেখ কামাল সাংস্কৃতিক জোটের সদস্যদের মতবিনিময়

কমিটির সহ-সভাপতি জনাব শহিদুল ইসলাম ও জনাব নিজামউদ্দীন, যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক জনাব রুহুল আমীন, জনাব রবিউল ইসলাম ও জনাব প্রশান্ত কুমার ঘোষ, সাংগঠনিক সম্পাদক জনাব হারুন অর রশীদ, সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক জনাব মো: নুরুল ইসলাম, প্রচার সম্পাদক জনাব আব্দুল খালেক, সহ-প্রচার সম্পাদক জনাব আমজাদ হোসেন, কোষাধ্যক্ষ জনাব মামুন বিশ্বাস, নাট্য সম্পাদক জনাব রবিউল ইসলাম রাজা, সহ-নাট্য সম্পাদক জনাব আব্দুল বারী মোল্লা, সংস্কৃতি সম্পাদক জনাব আবুবকর, কার্যনির্বাহী সদেস্য- জনাব স্বপন কুমার বাগচী, জনাব নুরুল ইসলাম, জনাব নূর মহম্মদ (গুরুজী), জনাব শাকিল আহম্মেদ (উজ্জ্বল) ও মো: শাহ নেওয়াজ ইসলাম সেনা। সভায় অন্যান্যের মধ্যে আরও উপস্থিত ছিলেন জনাব শহিদুল ইসলাম, জনাব নিখিল চন্দ্র দেবনাথ, জনাব মিজানুর রহমান মজনু, জনাব ডা: আ: রশীদ, জনাব বাদশা বিশ্বাস, জনাব আসলাম মিয়া, জনাব শিশির কুমার বিশ্বাস, জনাব মো: পিন্টু, জনাব আতিয়ার রহমান ও জনাব শহিদুল ইসলাম।

নবগঠিত কমিটির প্রধান উপদেষ্টা জানান শেখ কামাল সাংস্কৃতিক জোট, কুমারখালী সংগঠনে প্রথম গুরুত্ব পাবে আমাদের মৃত প্রায় যাত্রা শিল্প। যাত্রার মধ্যে ঢুকে পড়া অপসংস্কৃতিকে হটিয়ে, অভিনয়-উপস্থাপন-পরিবেশন কৌশলকে আরও যুগযোপোযোগী করে, আধুনিক প্রযুক্তি ব্যবহারের মাধ্যমে তরুণ প্রজন্মের কাছে মাধ্যমটি আরও জনপ্রিয় করতে কাজ করবে সংগঠন। পরিকল্পনা করা হয়েছে প্রতি বছর সকল ইউনিয়নের যাত্রা দল নিয়ে নিয়মিত একটি সমন্বিত শীতকালীন যাত্রা উৎসবের আয়োজন করা হবে।