Sufi Faruq (সুফি ফারুক)

আর্কাইভ

যদি কিছু আমারে শুধাও প্রিয় গানের বানী সংগ্রহ

শিল্পীঃ দেবব্রত বিশ্বাস (শ্যামল মিত্র ও শ্রীকান্ত আচার্য্যও গেয়েছেন) সুরকারঃ সলিল চৌধুরী গীতিকারঃ সলিল চৌধুরী যদি কিছু আমারে শুধাও কি যে তোমারে কবো নীরবে চাহিয়া রবো না বলা কথা বুঝিয়া নাও (২) ঐ আকাশ নত যুগে যুগে সংযত নীরবতা অবিরত কথা বলে গেছে কত (২) তেমনই আমার বাণী সৌরভে কানাকানি (২) হয় যদি ভ্রমরা গো

বিস্তারিত

না যেয়ো না প্রিয় গানের বানী সংগ্রহ

না যেয়ো না। রজনী এখনো বাকি আরও কিছু দিতে বাকি বলে রাত জাগা পাখি না যেয়ো না (২) .. আমি যে তোমারি শুধু জীবনে মরণে (২) ধরিয়া রাখিতে চাহি নয়নে নয়নে। না যেয়ো না.. রজনী এখনো বাকি আরও কিছু দিতে বাকি বলে রাত জাগা পাখি না যেয়ো না… যে কথা বলিতে বাধে যে ব্যথা মরমে

বিস্তারিত

একুশে ফেব্রুয়ারী – আবদুল গাফফার চৌধুরী কবিতা সংগ্রহ, প্রিয় গানের বানী সংগ্রহ

এই গানটিকে প্রথমে কবিতা হিসেবে লিখেছিলেন আব্দুল গফফার চৌধুরী। পরে প্রখ্যাত সঙ্গীতকার আবদুল লতিফ সুরারোপ করে গান হিসেবে দাড় করান। এরপর সুরটিকে আরও সুন্দর করে তোলেন শহীদ সুরকার আলতাফ মাহমুদ। এই গানটি যখন তিনি লিখেছিলেন তখন তার বয়স মাত্র ১৭ বছর, ঢাকা কলেজ এর আইএ ক্লাসের ছাত্র। ২২ শে ফেব্রুয়ারি পুলিশের লাঠিচার্জে আহত অবস্থায় হাসপাতালের

বিস্তারিত

এই গোকুলে শ্যামের প্রেমে কেবা না মজেছে সখি (৯৭) -লালন সাঁই প্রিয় গানের বানী সংগ্রহ

এই গোকুলে শ্যামের প্রেমে কেবা না মজেছে সখি । কারো কথা কেউ বলে না আমি কেবল হই কলঙ্কী ।। অনেকেই তো প্রেম করে এমন দশা ঘটে কারে গঞ্জনা দেয় ঘরে পরে শ্যামের পদে দিয়ে আঁখি ।। তলে তলে তলগোঁজা খায় লোকের কাছে সতী কওলায় এমন সৎ কতই পাওয়া যায় সদয় যে হয় সেই পাতকী ।।

বিস্তারিত

এ বড় আজব কুদরতি- ফকির লালন সাঁই (১৭৭৪-১৮৯০) প্রিয় গানের বানী সংগ্রহ

এ বড় আজব কুদরতি । আঠরো মোকামের মাঝে জ্বলছে একটি রূপের বাতি ।। কিবা রে কুদরতি খেলা জলের মাঝে অগ্নিজ্বালা খবর জানতে হয় নিরালা নীরে ক্ষীরে আছে জ্যোতি ।। ফণি মনি লাল জহরে সে বাতি রেখেছে ঘিরে তিন সময় তিন যোগ সেই ঘরে যে জানে সে মহারথি ।। থাকতে বাতি উজ্জ্বলাময় দেখ না যার বাসনা

বিস্তারিত

এ ধন যৌবন চিরদিনের নয়- ফকির লালন সাঁই (১৭৭৪-১৮৯০) প্রিয় গানের বানী সংগ্রহ

এ ধন যৌবন চিরদিনের নয় । অতি বিনয় করে নিমাই মায়েরে কয় ।। কেউ রাজা কেউ বাদশাগিরি ছেড়ে নেয় অধীন ফকিরি আমি নিমাই, কি ছার নিমাই ধন ছেড়ে বেহাল লয়েছি গায় ।। যখন হাওয়া বন্ধ হবে এই দেহ শ্মশানে যাবে তখন কুঠাবালাঘর, কোথা রবে কার ভবের লোভ-লালসে দুকূল হারায় ।। যাও শচীমাতা গৃহে আমারে বিসজর্ন

বিস্তারিত

এ জনম গেল রে অসার ভেবে- ফকির লালন সাঁই (১৭৭৪-১৮৯০) প্রিয় গানের বানী সংগ্রহ

এ জনম গেল রে অসার ভেবে । পেয়েছ মানবজনম হেন রে দুলর্ভ জনম আর কি হবে ।। জননীর জঠরে যখন অধোমুণ্ডে ছিলে রে মন বলেছিলে করব সাধন এখন কি তা মনে হয় না ভবে ।। ও মন কারে বল আমার আমার তুমি কার আজ কে বা তোমার ভাঙিবে সকল গুমার যেদিন শমন রায় আসিবে ।।

বিস্তারিত

আহাদে আহাম্মদ এসে নবি নাম তাই জানালে- ফকির লালন সাঁই (১৭৭৪-১৮৯০) প্রিয় গানের বানী সংগ্রহ

আহাদে আহাম্মদ এসে নবি নাম তাই জানালে । নবি যে তনে করিল সৃষ্টি সে তন কোথায় রাখিলে ।। আহাদ নামে পরোয়ার আহাম্মদ রূপে সে এবার জন্মমৃত্যু হয় যদি তার শরার আইন কই চলে ।। নবি যারে মানিতে হয় উচিৎ বটে তাই জেনে লয় পুরুষ কি সে প্রকৃতি কায় সৃষ্টির সৃজন কালে ।। আহাদ নামে কেন

বিস্তারিত

আশেকে উন্মত্ত যারা- ফকির লালন সাঁই (১৭৭৪-১৮৯০) প্রিয় গানের বানী সংগ্রহ

আশেকে উন্মত্ত যারা । সাঁইয়ের মনের বিয়োগ জানে তারা ।। কোথা বা শরার টাটি আশেকে বেভুল সেটি মাশুকের চরণ দুটি রয়েছে সে রূপ নিহারা ।। মাশুক রূপটি হৃদয়ে রেখে আশেকের বাতি জ্বেলে দেখে শত শত স্বগ দেখে মাশুকের চরণের ধরা ।। নাহি মানে ধমার্ধম নাহি তার কমার্কম যার রয়েছে বিকারশূন্য লালন কয় তার করণ সারা

বিস্তারিত