Sufi Faruq (সুফি ফারুক)

আর্কাইভ

১৯৭১ সালের ২৪ জানুয়ারি ঢাকার ইঞ্জিনিয়ারিং ইনস্টিটিউটে বঙ্গবন্ধুর ভাষণ বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান

পূর্ব পাকিস্তান সঙ্গীত শিল্পী সমাজ বঙ্গবন্ধুর সম্মানে ২৪ জানুয়ারি, ১৯৭১ ঢাকার ইঞ্জিনিয়ার্স ইনষ্টিটিউটে এক সংবর্ধনার আয়োজন করে। শিল্পীদের পক্ষ থেকে প্রদত্ত মানপত্রে শিল্পী আবদুল আহাদ বঙ্গবন্ধুকে ‘বঙ্গ সংস্কৃতির অগ্রদূত’ হিসেবে আখ্যায়িত করেন। অনুষ্ঠানে সভানেত্রীত্ব করেন বেগম লায়লা আর্জুমান্দ বানু। শিল্পীদের পক্ষ থেকে বঙ্গবন্ধুকে সরোদ, সেতার, একতারা এবং জয় বাংলার রেকর্ড উপহার দেয়া হয়। ১৯৬৫ সালে

বিস্তারিত

১৯৭১ সালের ১১ জানুয়ারি পটুয়াখালী জেলার সদর দপ্তরে বঙ্গবন্ধুর ভাষণ বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান

[৭ জানুয়ারি, ১৯৭১ রাতে গোলাম মোস্তফা নামক এক যুবককে সন্দেহজনকভাবে বঙ্গবন্ধুর বাসভবনে ঘোরাঘুরি করতে দেখে আটক করা হয়। তার কাছে ছোরা পাওয়া যায় এবং পুলিশের কাছে সে স্বীকার করে যে বঙ্গবন্ধুকে হত্যার জন্যে তাকে নিয়োগ করা হয়েছিল। এ ঘটনায় বিরাট চাঞ্চল্যের সৃষ্টি হয় এবং প্রেসিডেন্ট ইয়াহিয়া এ ঘটনার সংবাদ শুনে স্বস্তি প্রকাশ করে বঙ্গবন্ধু কাছে

বিস্তারিত

১৯৭১ সালের ৪ জানুয়ারী ঢাকায় রমনা গ্রীনে ছাত্রলীগের প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীতে বঙ্গবন্ধুর ভাষণ বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান

[আওয়ামী লীগের ছাত্র সংগঠন পূর্ব পাকিস্তান ছাত্রলীগ ১৯৭১ সনে সংগঠনের ২৩ তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী পালন করেন। এ উপলক্ষে ৪ জানুয়ারি, ১৯৭১ তারিখে ঢাকার রমনা গ্রীণে আয়োজিত অনুষ্ঠানে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান প্রধান অতিথি হিসেবে যোগ দেন। অনুষ্ঠানে প্রদত্ত ভাষণে বঙ্গবন্ধু বাংলা ও বাঙ্গালির প্রকৃত ইতিহাস রচনার জন্যে লেখকদের প্রতি আহ্বান জানান যাতে করে পাকিস্তানী শাসকদের পৃষ্ঠপোষকতার

বিস্তারিত

১৯৭১ সালের ৩ জানুয়ারী সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে বঙ্গবন্ধুর ভাষণ বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান

[৩ জানুয়ারী, ১৯৭১ ঢাকার রেসকোর্স ময়দানে আনুমানিক ২০ লাখ লোকের এক সমাবেশে জাতীয় ও প্রাদেশিক পরিষদে নবনির্বাচিত আওয়ামী লীগ দলীয় সদস্যগণ জনগণের সামনে শপথ গ্রহণ করেন। আওয়ামী লীগের নির্বাচনী প্রতীক নৌকার আকৃতিবিশিষ্ট প্রায় ১২ ফুট উঁচু ও ১২০ ফুট দীর্ঘ মঞ্চে সভার প্রারম্ভে ৬-দফা ও ১১-দফার প্রতীক হিসাবে বঙ্গবন্ধু ৬টি ও ১১ টি কবুতর উড়িয়ে

বিস্তারিত

১৯৭০ সালের ৩১ ডিসেম্বর হোটেল পূর্বানীতে বঙ্গবন্ধুর ভাষণ বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান

[ইত্তেফাক গ্রুপ অব পাবলিকেশনস-এর সাংস্কৃতিক ও চলচ্চিত্র বিষয়ক সাপ্তাহিকী ‘পূর্বানীর ষষ্ঠ বার্ষিকী উপলক্ষ্যে ৩১ ডিসেম্বর, ১৯৭০ ঢাকার হোটেল পূর্বানীতে একটি অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়। রেডিও-টিভিতে রবীন্দ্র সঙ্গীত বন্ধ করার সিদ্ধান্তের বিরুদ্ধে পূর্বানী উচ্চকণ্ঠ সমালোচক ছিল। আইয়ুব আমলে পূর্বাণীর প্রকাশনা দীর্ঘদিন সরকারী নির্দেশে বন্ধ রাখা হয়েছিল। অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব তাঁর ভাষণে ভাষা,

বিস্তারিত

১৯৭০ সালের ২৮ ডিসেম্বর বঙ্গবন্ধুর পত্রিকায় দেয়া বিবৃতি বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান

[২২ ডিসেম্বর ১৯৭০ প্রাদেশিক পরিষদে নির্বাচিত আওয়ামী লীগের সদস্য পাবনার আহমদ রফিক আততায়ীর ছুরিকাঘাতে খুন হয়। তার কিছুদিন আগে খুলনায় মমতাজ নামে আরেকজন আওয়ামী লীগ কর্মী আততায়ীর হাতে নিহত হন। এসব হত্যাকান্ডের বিরুদ্ধে তিনি হুঁশিয়ারি উচ্চরণ করে ২৮ ডিসেম্বর পত্রিকায় একটি বিবৃতি দেন। নিচে বিবৃতি উদ্ধৃত হলো।] আমি এই নৃশংস হত্যাকান্ডে গভীরভাবে দুঃখ ভারাক্রান্ত, যার

বিস্তারিত

১৯৭০ সালের ২৫ ডিসেম্বর পাবনার জনসভায় বঙ্গবন্ধুর ভাষণ বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান

[২৫ ডিসেম্বর ১৯৭০ সকালে শেখ মুজিবুর রহমান তাজউদ্দিন ও ডঃ কামাল হোসেনকে সাথে নিয়ে পাবনা রওয়ানা হন। বিকেলে পাবনার পুলিশ ময়দানে আহমদ রফিকের স্বরণে প্রায় লক্ষ লোকের এক শোকসভায় বঙ্গবন্ধু ভাষণ দেন। পথে পাবনা পৌঁছে তিনি মরহুমের মাজারে ফাতেহা পাঠ করেন এবং শোকসন্তপ্ত পরিবারবর্গকে সাত্ত্বনা দিতে আহমদ রফিকের বাসভবনে যান। শোকসভায় বঙ্গবন্ধুর ভাষণের অংশবিশেষ উদ্ধৃত

বিস্তারিত

১৯৭০ সালের ১৯ ডিসেম্বর সংবাদপত্রের জন্য বঙ্গবন্ধুর প্রদানকৃত বিবৃতি বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান

[১৭ ডিসেম্বর, ১৯৭০ তারিখে ৩১০ সদস্যবিশিষ্ট পূর্ব পাকিস্তানপরিষদের ২৭৯টি আসনের নির্বাচনে আওয়ামী লীগ ২৬৮ টি আসন লাভ করে। পিডিপি পায় ২টি, ওয়ালী ন্যাপ, জামাত ও নেজামে ইসলাম ১টি করে ও স্বতন্ত্র প্রার্থীরা ৬টি আসন লাভ করে। সংরক্ষিত ১০টি মহিলা আসনও আওয়ামী লীগের সুনিশ্চিত। উল্লেখ্য, পূর্ব পাকিস্তানথেকে জাতীয় বা প্রাদেশিক পরিষদের কোথাও ৩ মুসলিম লীগের কোন

বিস্তারিত

১৯৭০ সালের ১৪ ডিসেম্বর শেখ মুজিবুর রহমান কতৃক ইয়াহিয়া খানকে প্রেরনকৃত তারবার্তা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান

[১১ ডিসেম্বর, ১৯৭০ প্রেসিডেন্ট ইয়াহিয়া খান আওয়ামী লীগ প্রধান শেখ মুজিবুর রহমানের কাছে নির্বাচনে তাঁর দলের সাফল্যে অভিনন্দন জানিয়ে বার্তা পাঠান। নির্বাচনী সাফল্যে ভুট্টোও বঙ্গবন্ধুকে অভিনন্দন জানান। বঙ্গবন্ধু জবাবে ভুট্টোকেও অভিনন্দন জ্ঞাপন করেন। প্রেসিডেন্ট ইয়াহিয়া খানের জবাবে শেখ মুজিবুর রহমান যে তারবার্তা প্রেরণ করেন তা নিম্নরূপ।] চট্টগ্রাম ও ঘূর্ণি উপদ্রুত সন্দ্বীপ সফর শেষে ঢাকা ফিরে

বিস্তারিত

১৯৭০ সালের ১১ ডিসেম্বর সন্দ্বিপ হাইস্কুল মাঠে অনুষ্ঠিত জনসভায় বঙ্গবন্ধুর ভাষণ দেন বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান

[জাতীয় পরিষদ নির্বাচনের ফল ঘোষণার পর বঙ্গবন্ধু দ্বিতীয়বারের মতো ঘূর্ণিঝড় বিধ্বস্ত অঞ্চল পরিদর্শনের জন্যে ১০ ডিসেম্বর রাতে চট্টগ্রামের উদ্দেশ্যে ঢাকা ত্যাগ করেন। সপ্তাহব্যাপী এ সফরে বঙ্গবন্ধু নৌকা ও পায়ে হেঁটে বিঃধ্বস্ত এলাকার অনেক অংশ সফর করেন, প্রতিদিন অসংখ্য সভায় বক্তৃতা করেন। দলীয় ত্রাণতৎপরতা তদারক করেন। ১১ ডিসেম্বর সন্দ্বীপ হাই স্কুল মাঠে অনুষ্ঠিত জনসভায় প্রদত্ত তাঁর

বিস্তারিত