Sufi Faruq (সুফি ফারুক)

আর্কাইভ

আমার সলিল চৌধুরী গান খেকো

সলিল চৌধুরী আমার সবচেয়ে প্রিয় সুরকার। কেউ শিল্পী হতে জন্মান, কেউ নিজেকে শিল্পী করে গড়ে তোলেন, কেউবা তার বয়ে আনা নতুন কথাগুলো বলার জন্য, শিল্প মাধ্যমকে ব্যবহার করেন। সলিল চৌধুরী সেরকম শিল্পী যিনি তার বয়ে আনা নতুন কথাগুলো বলতে সঙ্গীত, কবিতা, নাটক, পেইন্টিং মাধ্যমে কে ব্যবহার করেছেন। শিশুবেলা থেকে শুরু করে শুষেছেন ভারতবর্ষের সব রূপের-রঙ্গের

বিস্তারিত

শেখ কামাল সাংস্কৃতিক জোট, কুমারখালী”র আনুষ্ঠানিক পথচলা শুরু কুমারখালী উপজেলা, সংস্কৃতি সংরক্ষণ ও উন্নয়ন

শুরু হল “শেখ কামাল সাংস্কৃতিক জোট, কুমারখালী”র আনুষ্ঠানিক পথচলা। সকল লোকজ সাংস্কৃতিক ঐতিহ্য সংরক্ষন ও উন্নয়নের উদ্দেশ্যে সংগঠনটির জন্ম। মুক্তিযুদ্ধের চেতনা ও বঙ্গবন্ধুর আদর্শে উজ্জীবিত কুমারখালী খোকসার প্রবীণ-নবীন মঞ্চ অভিনয় শিল্পী, পরিচালক ও কলাকুশলীরা মিলে শুরু করলেন সংগঠনটির আনুষ্ঠানিক পথচলা। রবিবার সংগঠনটির প্রধান উপদেষ্টা কুষ্টিয়া জেলা আওয়ামীলীগের বিজ্ঞান ও প্রযুক্ত বিষয়ক সম্পাদক তথ্য প্রযুক্তিবিদ সুফি

বিস্তারিত

শুভ জন্মদিন, খাঁ সাহেব ওস্তাদ নুসরাত ফাতেহ আলি খান অনুপ্রেরণার গল্প, গান খেকো

নুসরাত ফাতেহ আলি খাঁর পিতা ফাতেহ আলি খাঁর ধারণা ছিল তার ছেলেকে দিয়ে সঙ্গীত হবে না। এজন্য তিনি ছেলেকে ডাক্তার বানাতে চাইতেন। এজন্য লেখাপড়া লাইনের সব বন্ধুদের সাথে নিয়মিত কথা বলতেন, বুদ্ধি পরামর্শ চাইতেন, শঙ্কা প্রকাশ করতেন।   নুসরাত লেখাপড়ায় এভারেজ ছিলেন। একবার একাডেমিক ফল ভালো না হওয়ায় এক বন্ধুর কাছে ফাতেহ আলী খাঁ ছেলেকে

বিস্তারিত

শ্রদ্ধাঞ্জলি, খান সাহেব ওস্তাদ নুসরাত ফাতেহ আলী খান অনুপ্রেরণার গল্প, গান খেকো, দিনপঞ্জি

ওস্তাদ নুসরাত ফাতেহ আলী খান-এর পিতা ফাতেহ আলী খাঁর ধারনা ছিল তার ছেলেকে দিয়ে সঙ্গীত হবে না। এজন্য তিনি ছেলেকে ডাক্তার বানাতে চাইতেন। এজন্য লেখাপড়া লাইনের সব বন্ধুদের সাথে নিয়মিত কথা বলতেন, বুদ্ধি পরামর্শ চাইতেন, শঙ্কা প্রকাশ করতেন। নুসরাত ফাতেহ আলী খান লেখাপড়ায় এভারেজ ছিলেন। একবার একাডেমিক ফল ভালো না হওয়ায় এক বন্ধুর কাছে ফাতেহ

বিস্তারিত

লাকী আখান্দ (৭ জুন, ১৯৫৬ – ২১ এপ্রিল, ২০১৭) গান খেকো

লাকী আখান্দ আমার অন্যতম প্রিয় সুরকার। তিনি গাইতেনও। তবে তার গাওয়ার আমি বিশেষ ভক্ত ছিলাম না। ভক্ত ছিলাম তার সুরের। তবে যে যেসময় গান শোনার সময় সুরকারের নাম খুঁজতাম না, সুরকারকে নিয়ে ভাবতাম না, শুধু গাইয়েকে চিনতাম, সেসময় থেকে তার গান শুনছি। বড় হতে হতে একসময় সুরকারের গুরুত্ব বোঝা শুরু করলাম। প্রথম সুরকার হিসেবে তার

বিস্তারিত

আমার কবীর সুমন গান খেকো

আমরা যখন বড় হচ্ছিলাম, তখন সুমনের গান এলো। আমাদের ছেয়ে ফেললো। একে, দুয়ে বা সদলবলে যখন যেখানে গান বা গানের কথা, সেখানেই কবীর সুমনের। প্রেমের অনুভবে-প্রকাশে, বিরহে, প্রতিবাদে, আন্দোলনে – সবখানেই ছিলেন কবীর সুমন আমাদের সাথে। তৎকালীন সুমন চট্টোপাধ্যায় নাম, একই গান নিয়ে। স্বর্গীয় প্রেমের গান ছেড়ে যেন আমাদের প্রেমের কথা। আমাদের ছোট ছোট সুখ

বিস্তারিত

চলে গেলেন পটিয়ালার শেষ অর্থডক্স খলিফা – ওস্তাদ বড় ফাতেহ আলী। গান খেকো

ঢাকা-কাঠমুন্ডু ফ্লাইট। নেপালের রাজাকে গান শোনাতে যাচ্ছিলেন পাটিয়ালার ওস্তাদ আমানত আলি-ফাহেত আলি খান। হঠাৎ খারাপ আবহাওয়ার মধ্যে পড়ে প্লেন। ফ্লাইটের প্রায় সবাই যখন তারস্বরে প্রার্থনা করছে, তখন হঠাৎ ফাতেহ আলি খেয়াল করলেন, আমানত আলি যেন ধ্যানস্থ হয়ে গুনগুন করে সুর ভাজছেন। হঠাৎ ফাতেহ আলিকে বললেন “একটা সুর এসেছে, কম্পোজিশনও শেষ করেছি, দ্রুত শিখে নাও”। ফাতেহ

বিস্তারিত

গজল গান খেকো

গজল এ ধরনের উর্দু কবিতা, বা জোড়া দেয়া কবিতার সমগ্র। এই কবিতাগুলো যখন সুর মিশিয়ে গাওয়া শুরু হলো, তখন সেই গানের নামও হল গজল। উর্দু গজল সচরাচর দুই দুই লাইন করে তৈরি কবিতা। যেটাকে “মিসরা” বলে। মজার বিষয় হচ্ছে, প্রতিটি মিসরা একটি করে কবিতা স্বাধীন কবিতা। আগের মিসরার সাথে তার সম্পর্ক থাকতেও পারে, নাও পারে।

বিস্তারিত

গান খেকো সিরিজ- সূচি গান খেকো

সঙ্গীতের কোন বয়স নেই মানি। কিন্তু শাস্ত্রীয় সঙ্গীতটা যখন আমার হৃদয়ে, তখন গলায় লাগার বয়স চলে গেছে। পেশাদারী ব্যস্ততা, সামাজিক-পারিবারিক দায়-দায়িত্ব, সব কিছু মিলিয়ে সঙ্গীতকে গলায় বা হাতে ধারণ করার অবসর আর নেই। কিন্তু এ রোগ থেকে চাইলেই তো আর আরোগ্য লাভ হয়না। ক্রমে সঙ্গীতটা আমার – গরীবের  ঘোড়া রোগের মতো হয়ে রয়ে গেল। গানের তেমন

বিস্তারিত

ঠাট ভিত্তিক রাগের গ্রুপ গান খেকো

সকল ঠাটের কারিগরি বর্ণনা পাওয়া যাবে আগের ঠাট আর্টিকেলটিতে। এখানে ঠাট এর উপরে ভিত্তিক রাগের গ্রুপ তৈরির চেষ্টা করা হয়েছে–   ১. বিলাবল ঠাটের রাগ: বিলাবল, শঙ্করা, পাহাড়ি, হংসধ্বনি, দুর্গা, দেশকার, কুকুবভ বিলাবল, সুখিয়া, সুখিয়া বিলাবল, দেভগিরি বিলাবল, মান্দ। ২. কাফি ঠাটের রাগ: কাফি, বাগেশ্রী, ভীমপলশ্রী, ধানেশ্রী, ধানী, পিলু, মেঘ মালহার। ৩. কল্যাণ ঠাট: ৪.

বিস্তারিত