Sufi Faruq (সুফি ফারুক)

আর্কাইভ

কীর্তন গান খেকো

কীর্তন বাংলা সঙ্গীতের অন্যতম আদি সঙ্গীত শৈলী। শৈলীর মান বিবেচনায় আদি বাংলা সঙ্গীতের শ্রেষ্ঠ সঙ্গীত শৈলীকীর্তন। পরিমাণ বিবেচনায়ও কীর্তনই সবচেয়ে সমৃদ্ধ। সাধারণ লোকের পক্ষে অতি সহজে ঈশ্বর সাধনার একটি উপায় হিসেবে এর উদ্ভব।   কীর্তন বিষয়ে বাংলাপিডিয়া আর্টিকেলে লেখা হয়েছে: কীর্তন  বাংলা সঙ্গীতের অন্যতম আদি ধারা। সাধারণ লোকের পক্ষে অতি সহজে ঈশ্বর সাধনার একটি উপায়

বিস্তারিত

রাহুল দেব (আর. ডি) বর্মণের ডাক নাম কিভাবে “পঞ্চম” হল? গান খেকো

সঙ্গীত পরিচালক রাহুল দেব (আর. ডি) বর্মণের ডাক নাম “পঞ্চম”। পঞ্চম মানে “৫”, সুরের ক্ষেত্রে সপ্তকের পাঁচ নম্বর সুর, মানে “পা” বা “পঞ্চম”।   ছোট বেলায় আর. ডি. নাকি যখনই কাঁদতেন, তখন কান্নার সুর থাকতে সবসময় “পঞ্চমে” বা “পা” তে। এজন্যই বড় বর্মণ (শচীন দেব বর্মণ), ছেলের নাম রেখে দিলেন “পঞ্চম”।   #গানের_টুকরো_গল্প #গান_খেকো

ফরিদা পারভিন (১৯৫৪-) শিল্পী

লালন কন্যা হিসেবে পরিচিত “ফরিদা পারভীন” বিখ্যাত বাউল গানের শিল্পি। তিনি মুলত পরিচিত লালন গানের শিল্পী, লালন গানের গবেষক হিসেবে । ফরিদা পারভিন ১৯৫৪ সালে নাটোর জেলায় জন্মগ্রহণ করেন। তার শৌশব বয়স কেটেছে বাউল সম্রাট লালন সাইজির পুন্যভূমি কুষ্টিয়া জেলায়। ১৯৬৪ সালে তিনি নাটোর বেতার কেন্দ্রে নজরুল সঙ্গীন শিল্পি হিসেবে তালিকাভূক্ত হন। তিনি ৭০ এর

বিস্তারিত

ফকির লালন সাঁই (১৭৭৪-১৮৯০) শিল্পী

লালন (জন্ম ১৭৭৪- মৃত্যু অক্টোবর ১৭, ১৮৯০) বহুমুখী প্রতিভার অধিকারী একজন বাঙালী যিনি ফকির লালন, লালন সাঁই, লালন শাহ, মহাত্মা লালন ইত্যাদি নামেও পরিচিত।[৬] তিনি একাধারে একজন আধ্যাত্মিক বাউল সাধক, মানবতাবাদী, সমাজ সংস্কারক, দার্শনিক, অসংখ্য অসাধারণ গানের গীতিকার, সুরকার ও গায়ক ছিলেন। লালন ছিলেন একজন মানবতাবাদী যিনি ধর্ম, বর্ণ, গোত্রসহ সকল প্রকার জাতিগত বিভেদ থেকে

বিস্তারিত

আমার মান্না দে / প্রবোধ চন্দ্র দে (১৯১৯-২০১৩ ) শিল্পী

প্রথম যেদিন ওনাকে স্পর্শ করলাম, সেদিন ছিল আমার জীবনের শ্রেষ্ঠতম আনন্দের দিনের একটি। আমার মান্না দে। আমাদের মান্না দে। ” ২৪ শে অক্টোবর ২০১৩ তে উনি চলে গেলেন। সেদিন আমার বারবার মনে হচ্ছিল – আজ পর্যন্ত আমার অডিও লাইব্রেরীতে তার ৯ শো গানের ট্যাগ ছিল – Pandit Manna Dey (1919), India (Vocal). আর সেই ট্যাগের

বিস্তারিত