Sufi Faruq (সুফি ফারুক)

আর্কাইভ

একাদশ সংসদে নির্বাচিত এমপির কাছে কুমারখালী-খোকসার তরুণ-তরুণীদের প্রত্যাশা কি? আর্টিকেল ওপিনিয়ন, কুমারখালী-খোকসা, দিনপঞ্জি, নোট

আমি আমার সব কর্মসূচিতে অংশগ্রহণ করা তরুণ-তরুণীদের জিজ্ঞেস করেছি- “একাদশ সংসদে নির্বাচিত এমপির কাছে তাদের প্রত্যাশা কি হবে?” সম্প্রতি তাদের প্রত্যাশা বিষয়ে একটি সার্ভেও করেছি। সেটির একটা যোগফল প্রকাশ করলাম: ১. কুমারখালী-খোকসার তরুণ প্রজন্মের শিক্ষা, দক্ষতা, কর্মসংস্থান, বিনোদন বিষয়ে একটি সুনির্দিষ্ট লিখিত পরিকল্পনা প্রণয়ন করতে হবে। সেই পরিকল্পনাতে সুনির্দিষ্ট সময়সহ ক্রমশঃ বেকারত্ব নিরসনের পরিকল্পনা থাকতে

বিস্তারিত

আমার সৈয়দ মুজতবা আলী নোট

জীবনে দু’একবার ভীষণ প্রেমে পড়েছি। সেরকম এক প্রেমের সময়, সৈয়দ মুজতবা আলী দেখা দিয়েছিলেন আমার জীবনে, একদম নতুন করে। আমার প্রেয়সী আমাকে পড়তে দিলেন সৈয়দ সাহেবের প্রেমের উপন্যাস “শবনম”। ঠিক যেন গল্প বা উপন্যাস নয়, মনে হয় বিরাট প্রেমের কবিতা। আফগানিস্তানের অস্থির সময়ের প্রেক্ষাপটে লেখা। বরফ জমা শীতকালের গল্প বলে, প্রেয়সীও আমাকে খুব শীতের মধ্যেই

বিস্তারিত

শুভ জন্মাষ্টমী নোট

কৃষ্ণ করলে লীলা, আর আমরা করলে…. আমাদের খুব প্রচলিত রসিকতার একটি। সনাতন ভগবান বিষ্ণুর অষ্টম অবতার শ্রীকৃষ্ণকে দেখার কিংবা বিচার করার আমাদের দৃষ্টিভঙ্গি তৈরি হয়েছে, কিছুটা আমাদের সেমেটিক ধর্মাবলম্বীদের বিশ্বাসের সিস্টেমের কারণে, কিছুটা ওয়েস্টার্ন পার্সপেকটিভ-ন্যারেটিভ থেকে। তার প্রসঙ্গ মানেই- রাধা, গোপী, রসলীলা এসব উদাহরণে। ঠাট্টা, ছেলেখেলা, এগজটিক, তবে তেমন সিরিয়াস কিছু নয়। প্রথমত আমাদের চশমা

বিস্তারিত

নুসরাত ফাতেহ আলী খান : এক অনুপ্রেরণা আর্টিকেল ওপিনিয়ন, দিনপঞ্জি, নোট, পেশা পরামর্শ

১৯৯৭ সালের এই দিনেই চলে গিয়েছিলেন বিশ্ববিখ্যাত কাওয়াল, খান সাহেব, ওস্তাদ নুসরাত ফাতেহ আলী খান। তার একটি গল্প আমাকে দারুণ অনুপ্রেরণা দেয়: নুসরাত ফাতেহ আলী খান সাহেবের পিতা, ওস্তাদ ফাতেহ আলী খাঁর ধারনা ছিল, তার ছেলেকে দিয়ে সঙ্গীত হবে না। এজন্য তিনি ছেলেকে ডাক্তার বানাতে চাইতেন। লেখাপড়ার লাইনের সব বন্ধুদের সাথে নিয়মিত কথা বলতেন, বুদ্ধি

বিস্তারিত

সায়মা ওয়াজেদ ইয়ুথ বাংলা কালচারাল ফোরাম এর লোগো উন্মোচন করেন ইয়ুথ বাংলা কালচারাল ফোরাম, দিনপঞ্জি

সায়মা ওয়াজেদ ইয়ুথ বাংলা কালচারাল ফোরাম এর লোগো উন্মোচন করেন

প্রজন্ম, দাবী আদায় হবার পরেও, খেয়াল করে দেখো – এখন তারা কি চাইছে? আর্টিকেল ওপিনিয়ন, দিনপঞ্জি, নোট

প্রিয় প্রজন্ম, দাবী আদায় হবার পরেও, তোমাদের যেসব লোক মাঠে থাকার বুদ্ধি দিয়েছিলো, খেয়াল করে দেখো – এখন তারা কি চাইছে? তোমাদের ব্যবহারের প্রয়োজন প্রায় ফুরিয়ে এসেছে। আর কয়েকটি দিন। এরপর তোমাদের ছবি ছাড়া আর কিছু তাদের দরকার হবে না। তোমাদের ২/১ টা লাশ পেলে প্রয়োজন আরো আগে ফুরাবে। যেখানে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী তোমাদের দাবী সংযোজিত

বিস্তারিত

আমরা জাতি হিসেবে সব সুবিধারই অপব্যবহার করতে চাই আর্টিকেল ওপিনিয়ন, দিনপঞ্জি, নোট

আমরা জাতি হিসেবে সব সুবিধারই অপব্যবহার করতে চাই। আইন শৃঙ্খলা বাহিনী আপনাদের গুজব ছড়ানো লোকের লিংক দিতে বলেছিল, আপনাদের সাথে ব্যক্তিগত শত্রুতা আছে এমন লোকের লিংক না। যাহোক: ১. গুজব ছড়ানো মানে বোঝানো হচ্ছে – স্থান, কাল, ঘটনা সম্পর্কে মিথ্যে তথ্য ছড়ানো, যাতে সাধারণ জনগণ বা কোন জনগোষ্ঠী বিভ্রান্ত হতে পারে, সেন্টিমেন্টাল হতে পারে, যাতে

বিস্তারিত

আন্দোলনের শুরুতে শিক্ষার্থীরা শান্ত ছিল। কারও ইচ্ছে ছিল না সহিংস কিছু করার। আর্টিকেল ওপিনিয়ন, দিনপঞ্জি, নোট

আন্দোলনের শুরুতে শিক্ষার্থীরা শান্ত ছিল। কারও ইচ্ছে ছিল না সহিংস কিছু করার। মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশ ছিল বাচ্চাদের কিছু না বলার। সেসময় অল্প কিছু অপ্রীতিকর ঘটনা ঘটেছে, হঠাৎ করে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর হাত থেকে, সকল নিয়ন্ত্রণ নিতে গিয়ে। পরিস্থিতি সহিংস হবার মতো তখনও কিছু হয়নি। অনেক এলাকায় রাস্তা বন্ধ করে পিকনিকের মতোই চলছিলো আন্দোলন। ইতোমধ্যে চলে এলো

বিস্তারিত

বঙ্গবন্ধুর নাম দিয়ে, ৭ ই মার্চের ভাষণ দিয়ে কোমলমতি শিশুদের উত্তেজিত করতে চাচ্ছেন? আর্টিকেল ওপিনিয়ন, দিনপঞ্জি, নোট

ঙ্গবন্ধুর নাম দিয়ে, ৭ ই মার্চের ভাষণ দিয়ে কোমলমতি শিশুদের উত্তেজিত করতে চাচ্ছেন? বঙ্গবন্ধু কি দাবী আদায় হবার পরেও গোঁয়ার্তুমি করে কর্মসূচি চালিয়ে যেতেন? নাকি জনমত তৈরি, দাবী পেশ, আন্দোলন, আলোচনার মাধ্যমে, সিস্টেমেটিক প্রসেসে দাবী আদায় করতেন? বঙ্গবন্ধু কি কোনদিন তার আন্দোলন ত্বরান্বিত করার জন্য গুজবের আশ্রয় নিয়েছেন, বা গুজবকে সমর্থন করেছেন? বঙ্গবন্ধু কি কোনদিন

বিস্তারিত

প্রিয় তারুণ্য, এখন ঘরে ফিরে মুল যুদ্ধটা করো। আর্টিকেল ওপিনিয়ন, দিনপঞ্জি, নোট

প্রিয় তারুণ্য, এখন ঘরে ফিরে মুল যুদ্ধটা করো। যেই যুদ্ধটা সময়মত করলে আজ হয়ত তোমাকে রাস্তায় নামতে হতো না। যুদ্ধটা তোমার অনিয়ম করা পরিবারের সদস্য, আত্মীয়ের বিরুদ্ধে। যুদ্ধটার দু-চারদিনের না, প্রতিদিনের। লাঠি ফালা নিয়ে না, নৈতিকতা দিয়ে। নিশ্চিত করো- তোমার বাবা-মা-ভাই-বোন তার মালিকানায় বা আওতায় থাকা ফিটনেস বিহীন গাড়ি চালাবেন না। ঘুষ দিয়ে ফিটনেস নেবেন

বিস্তারিত