Sufi Faruq Ibne Abubakar (সুফি ফারুক ইবনে আবুবকর)

সঙ্গীতের স্বর বা সুর গান খেকো, সঙ্গীতের ব্যাকরণ

গান খেকো - সুফি ফারুক ইবনে আবুবকর | Gaan Kheko -by Sufi Faruq Ibne Abubakar

স্বর দিয়েই সঙ্গিত তৈরি হয়। তাই স্বরকে সঙ্গীতের প্রধান বর্ণও বলা যেতে পারে।

খুব সহজভাবে বলা যায় – ২২টি শ্রুতির মধ্যে, বিশিষ্ট ১২ টি বিশিষ্ট শ্রুতিই হলো “স্বর”। এই শ্রুতিগুলোর মাধ্যমেই প্রায় সকল শ্রুতির প্রতিনিধিত্ব করা যায়।

১২ টি স্বরের মধ্যে ৭ টি স্বরকে বলে “শুদ্ধ-স্বর”, এরা সর্ববিশিষ্ঠ স্বর।

অন্য ৫ টিকে বলে বিকৃত স্বর (এত সুন্দার সুরগুলোকে বিকৃত নাম দেয়াটা বড্ড অন্যায় হয়েছে)। সেই ৫ টি বিকৃত স্বরের মধ্যে – ৪ টি স্বর কোমল-স্বর, ১ টি কড়ির-স্বর। বিকৃত স্বরগুলো পাশের শুদ্ধ স্বরের কাছাকাছি।

১) “সড়জ” বা সংক্ষেপে “সা”। এটাকে কেউ কেউ “খাড়াজ” বা “খারাজ” বলেন।

২) “খষভ” বা সংক্ষেপে “রে”। .এটাকে কেউ কেউ “রিখাব” বা “রেখাব” বলেন।

৩) “কোমল খষভ” যাকে সংক্ষেপে প্রকাশ করা হয় “ঋ” দিয়ে।

৪) “গান্ধার” বা সংক্ষেপে “গা”।

৫) “কোমল গান্ধার” বা সংক্ষেপে “ঞ্জা”।

৬) “মধ্যম” বা সংক্ষেপে “মা”।

৭) “তীব্র মা” বা “কড়ির মা”।  যেটাকে সংক্ষেপে প্রকাশ করা হয় “ক্ষা” দিয়ে।

৮) “পঞ্চম” সংক্ষেপে “পা”।

৯) “ধৈবত” বা সংক্ষেপে “ধা”।

১০) “কোমল ধৈবত” বা সংক্ষেপে “দা”।

১১) “নিষাদ” বা “নিখাদ” । .সংক্ষেপে প্রকাশ করা হয় “নি” বা “না” দিয়ে।

১২) “কোমল নিষাদ” বা সংক্ষেপে “ণি”। এই স্বরটিকে কেউ কেউ “নিখাদ” ও বলে।

 

গাইবার সময় সবাই সংক্ষিপ্ত রুপ গান। তবে বলা বা লেখার সময় সচরাচর পুরো নাম ব্যাবহার করা হয়। তাই নামগুলো মনে রাখার দরকার আছে।



আপনার মন্তব্য দিন