প্রোডাক্ট কোয়ালিটির সাথে কোন আপোষ নয় -উইলিয়াম এডওয়ার্ডস ডেমিং।

নতুন উদ্যোক্তাদের প্রতি সব সময় আমার একটা পরামর্শ থাকে – প্রোডাক্ট কোয়ালিটির সাথে কোন আপোষ নয়।

একটা জরিপের ফলাফলে দেখেছিলাম, কোন প্রডাক্টের কোয়ালিটি নিয়ে ক্লায়েন্ট অসন্তুষ্ট হলে তাঁর ‘অসন্তুষ্টি’র কথা পরিচিত ৯ জনকে বলেন। অথচ সন্তুষ্টির কথা বলেন ৩ জনকে। আর সেই সন্তুষ্টির ভয়াবহ নেগেটিভ ব্রান্ডিং থেকে রক্ষা পেতে, ব্যবসা শুরুর প্রথম থেকেই নজর দিতে হবে এই দিকে।

কোয়ালিটি ম্যানেজমেন্ট কত বড় সাফল্য এনে দিতে পারবে তাঁর সব চেয়ে বড় উদাহরণ হল জাপান। এখন যদি আপনাকে জিজ্ঞেস করা হয় কোন দেশের তৈরি প্রোডাক্ট সব চেয়ে ভালো? আপনি বিন্দুমাত্র সময় না নিয়ে বলে দিবেন দেশটির নাম। এই দেশটায় তেমন খনিজ সম্পদ তো নেই উল্টো আছে ভূমিকম্প-সাইক্লোন-আগ্নেয়গিরি অগ্ন্যুৎপাতসহ যাবতীয় প্রাকৃতিক দুর্যোগের প্রকোপ। এর উপরে রয়েছে দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের ভয়াবহ ক্ষতি। এই সব সমস্যা উৎরিয়ে ‘Made in Japan’কে সর্বচ্চ শিখরে নিয়ে গেছে জাপানিদের কোয়ালিটি ম্যানেজমেন্ট।

জাপানের এই কোয়ালিটি ম্যানেজমেন্টে যে ব্যক্তির ভূমিকা সবচেয়ে বড়, তিনি ছিলেন পারমানবিক বোমায় জাপান ধ্বংস করা দেশ আমেরিকার নাগরিক। নাম উইলিয়াম এডওয়ার্ডস ডেমিং। বিজনেস স্কুলের ছাত্রদের কাছে ডব্লিউ এডওয়ার্ডস ডেমিং নামে পরিচিত। প্রথমে কোয়ালিটি ম্যানেজমেন্টের কোয়ালিটি প্রোগ্রাম নিয়ে তিনি ১৪টা পয়েন্ট দিয়েছিলেন আমেরিকানদের। তারা তেমন পাত্তা দেয়নি।

এদিকে পোস্ট-ওয়ার জাপানের অবস্থা দুর্ভিক্ষের মত করুণ ছিল। এই সময় ইউএস আর্মির সাথে বেশ কিছু অসামরিক মার্কিন ব্যক্তি, বিধ্বস্ত দেশটাকে টেনে তুলতে জাপান আসেন। এই দলে আসেন স্ট্যাটিস্টিকসের প্রফেসর ডেমিং। তিনি তাঁর কোয়ালিটি প্রোগ্রাম জাপানিদের প্রেসক্রাইব করেন। জাপানিরা সেটা চালু করেছিল সেই ১৯৫০-এর শুরুর দিকে। ফল হিসেবে ১৯৭০-এ এসে দেখা যায় মার্কিন মার্কেটের সবচেয়ে বড় শেয়ারহোল্ডার জাপানিরা। মাত্র দুই দশকের ব্যবধানে বিশ্বের অন্যতম বৃহৎ অর্থনীতির দেশ হয়ে যায় দেশটি।

উইলিয়াম এডওয়ার্ডস ডেমিং এখনও জাপানিজ উদ্যোক্তাদের কাছে দেবতুল্য এক নাম। আজও জাপানে ডেমিংয়ের স্মরণে ‘ডেমিং ডে’ পালিত হয়। সেদিনে কর্মচারীদের দেওয়া হয় বিশেষ বোনাস।

সুতরাং নতুন উদ্যোক্তারা যারা আসছেন, দয়া করে এই বিষয়টি মাথায় রাখবেন। মনে রাখবেন – কোয়ালিটি কম্প্রোমাইজ করে আপনি শুধু নিজের ক্ষতি করেন না, এ খাতের সব উদ্যোক্তার ক্ষতি করেন, দেশেরও ক্ষতি করেন।

মন্তব্য করুন