• ২৭/১০/২০২০

Breaking News :

বাংলাদেশের ক্রিকেটে পাকিস্তানের ভূমিকা!

ওডিআই- টুয়েন্টি২০তে বাংলাওয়াশের পরে, টেস্টে পাকিস্তানকে যেভাবে টাইগাররা রুখে দিয়েছে তাতে এ দেশের জন্ম নিবন্ধন করা ‘দিলসে পাকিস্তানি’রা ভীষণ কষ্ট পেয়েছে। তারা তাদের বুকফাটা আর্তনাদ, চোখের পানি আর লেজ লুকিয়ে শুরু করেছে তাদের সেই পুরনো খেলা- বিভ্রান্ত করা।

সাকিব কেন ওয়াহাব রিয়াজের আক্রমণাত্মক আচরণের জবাব দিলো, কেন আঙুল তুলে কথা বলল, কেন চোখ রাঙানির উত্তর চোখ গরম করে দিল। ব্লা… ব্লা… ব্লা…।

এর সাথে শুরু হয়েছে নাকিকান্না- ‘বাংলাদেশ ক্রিকেটের উন্নতিতে পাকিস্তানের অনেক অবদান রেখেছে।’ পাকিরা ঢাকায় লীগ খেলে অনেক সহায়তা করেছে। ব্লা… ব্লা… ব্লা…।

বাংলাদেশ অতিথি পরায়ণ হিসেবে বিখ্যাত, এখন পাকিস্তান দল আমাদের অতিথি। তাই পাকিদের কিছু বলা যাবে না। সাকিবের উচিৎ হয়নি রিয়াজের কথার উত্তর দেয়ার, ব্লা… ব্লা… ব্লা…।
তাহলে কি উচিৎ ছিল?

১৯৯৯-২০০০ ক্রিকেট মৌসুমে কথা। দুর্দান্ত ফর্মে ছিলেন জাতীয় দলের সেরা পেসার হাসিবুল হাসান শান্ত। ঢাকা লীগে খেলার সময় পাকি ক্রিকেটার জহুর এলাহী ব্যাট দিয়ে বাঁ হাঁটুতে মেরে শান্ত’র ক্যারিয়ারটাই নষ্ট করে দিয়েছিল। আকালে ক্রিকেট ইতিহাস থেকে ঝরে যায় এই সম্ভাবনাময় ক্রিকেটার। শান্ত কিন্তু ঐ ঘটনার জন্য একটা গলিও দেননি জহুর এলাহীকে। বিসিবিও নেয়নি ন‌্যূনতম কোনো ব্যবস্থা। পরের মৌসুমেও সে এ দেশে খেলেছে। পাকিরা এদেশ খেলতে এসেছে স্রেফ টাকা কামানোর জন্য। যারা ঢাকা লীগের নিয়মিত দর্শক তারা বলতে পারবে কত নোংরামি করে এই পাকিরা। এদেশে ম্যাচ ফিক্সিংয়ের বীজ রোপণ কিন্তু এদের হাতে। পাকিরা এ দেশে খেলার জন্য কত মারিয়া- যারা এর সাথে সংশ্লিষ্ট তারা জানে। যাওয়া-আসার প্লেন ভাড়া আর থাকা-খাওয়ার চুক্তিতে শুধু খেলে যায় না, পরের বছর আরো ২-৩জনকে সাথে করে নিয়ে আসে।

পাকিরা আমাদের কি চোখে দেখে তার একটা ছোট্ট উদাহরণ দেই। জিয়াউর রহমানের শাসন আমলে ১৯৮০ সালে পাকিস্তান জাতীয় দলের খেলোয়াড়রা ঢাকায় প্রথমবারের মতো খেলতে আসে ‘ওমর কোরেশী একাদশ’ নামে। অধিনায়ক ইমরান খান (পুরো নাম ইমরান খান নিয়াজি। আর একাত্তরে তৎকালীন পূর্ব পাকিস্তানের সেনাপ্রধান এবং মুক্তিযুদ্ধের সময় এ দেশে গণহত্যা চালানোর জন্য প্রধান দায়ীর নাম লেফটেন্যান্ট জেনারেল আমীর আব্দুল্লাহ খান নিয়াজি। দুজনের মধ্যে সম্পর্ক মিলিয়ে নেন। দুজনের স্যারনেম এক, দুজনেই জাতিতে পাশতুন এবং বাড়ী পাঞ্জাবের মিয়াওয়ালি।)। স্বাধীন বাংলাদেশের মাটিতে পা রেখেই ইমরান বলেছিল, ‘নমস্তে’। শুধু তাই নয় চট্টগ্রামের ম্যাচে মাঠে পাকিদের তুচ্ছতাচ্ছিল্য আচরণ দেখে দর্শকরা গ্যালারি ছেড়ে মাঠে নেমে আসতে বাধ্য হয়।

গত এশিয়া কাপের কথা এত দ্রুত কারো ভুলে যাওয়ার কথা না। আলিম দারের আম্পায়ারিং, রমিজ রাজার মন্তব্য গ্লোল্ড ফিসরা ভুলে গিয়ে কি ভাবে শোনায়, ‘বাংলাদেশ ক্রিকেটের উন্নতিতে পাকিস্তানের অনেক অবদান রেখেছে।’ এগুলো অবদান হলে ক্ষতি কোনগুলো?

প্রিয় প্রজন্ম এদের কথায় বিভ্রান্ত হইয়ো না।

Read Previous

প্রসঙ্গ সিটি মেয়র – পরিবর্তনের ক্ষমতা না দিয়ে, পরিবর্তন আশা করার মতো বোকা আর আমরা কতদিন থাকব?

Read Next

ইন্টারনেটের দামের ন্যায্যতা প্রসঙ্গে – মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর তথ্য প্রযুক্তি বিষয়ক উপদেষ্টা জনাব সজীব ওয়াজেদ জয়ের প্রতি