১৯৭২ সালের ১১ এপ্রিল গণপরিষদে বঙ্গবন্ধুর ভাষণ

মঙ্গলবার সকাল ১০ টায় বিশেষ অধিকার প্রশ্ন

 

বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান (প্রধানমন্ত্রী)ঃ জনাব স্পীকার সাহেব, আপনার মাধ্যমে জানাচ্ছি যে, ভবিষ্যতে আমার এই মাইকটি একটু উঁচু করে দেবেন, আমি মানুষ একটু বেশি লম্বা।

জনাব স্পীকার সাহেব, আপনার দৃষ্টি আকর্ষণ করতে বাধ্য হচ্ছি। আমাদের ভুললে চলবে না এবং সদস্য ভাইদের আমি বলি যে, আমরা গণপরিষদের সদস্য, সদস্যাদের একটা বিধি প্রণালী আছে; এর বাইরে প্রশ্ন করবার অধীকার নাই; এটা পার্লামেন্টারী কনভেনশন। আমি আপনার মাধ্যমে আমার সহকর্মীদের অনুরোধ করবো, দেখবেন, শেখবার চেষ্টা করবেন। আমরা বহুদিন পার্লামেন্টারী কাজ করতে পারিনি, আমাদের অভ্যাস খারাপ হয়ে গেছে। ১৯৫৮ সালের ‘মার্শাল ল’ জারীর পরে পার্লামেন্ট হয়নি; সেই জন্য আমরা সুযোগ পাইনি পার্লামেন্টারী রাজনীতি কাকে বলে এবং গণপরিষদ কাকে বলে তা শিখবার। সেই জন্য আমাদের কিছু অসুবিধা হয়। তাই বহুদিন পর সদস্যরা এসে কথা বলতে চায়, যদিও সেটা অনেক সময় বিধি বা Rules এর বাইরে হয়। আমি আপনার মাধ্যমে অনুরোধ করব যখন একজন কথা বলেন, তখন অন্য কারো বাঁধা দেওয়া উচিৎ নয়; এরূপ নিয়ম নাই। আমি আপনার মাধ্যমে জানতে চাই যে, গণপরিষদ একটা সুপ্রিম বডি, আমাদের ব্যবহারে বাইরে এমন কিছু প্রকাশ পাওয়া উচিৎ নয় যাতে জনসাধারণের কাছে আমাদের উজ্জত নষ্ট হয়। আমি আপনার দৃষ্টি আকর্ষণ করে বলতে চাই যে, যেসব রুলস, রেগুলেশন এবং বিধি আছে, তা আপনি অনুসরণ করেন। আমি আপনাকে এই হাউসের পক্ষ থেকে কথা দিচ্ছি, আমি আপনার সঙ্গে সম্পূর্ণ সহযোগিতা করব।

বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানঃ মেম্বারদের আর একটা বিষয় হুঁশিয়ার করতে চাই। স্পীকার যখন কথা বলেন, তখন আর কোন মেম্বরের অধিকার নাই কথা বলার। বললে আপনি মেহেরবাণী করে তাঁকে পরিষদ থেকে বের করে দিতে পারেন।

 

পরিষদ কমিটি গঠন প্রসঙ্গে

জনাব স্পীকার ঃ আমি সদস্যবৃন্দকে অনুরোধ করছি যে, আপনারা এখানে একে অন্যের কথা বলবেন না এবং সকলে স্পীকারকে সম্বোধন করে কথা বলবেন। যা কিছু বলবেন তা স্পীকারকে সম্বোধন করেই বলবেন। আর কোন বক্তৃতা নয়, বর্তমানে হাউসের সামনে আর কোন প্রস্তাব নেই। যে প্রস্তাব ছিল, তা অনুমোদিত হয়েছে, গৃহীত হয়েছে। এখন আর কোন কাজ নেই, এখন পরিষদ নেতা শেখ মুজিবুর রহমান সাহেব সমাপ্তি বক্তৃতা করবেন।

 

বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ঃ জনাব স্পীকার সাহেব, আমি আপনার মাধ্যমে পরিষদ সদস্যদের আমার আন্তরিক ধন্যবাদ জানাচ্ছি। আমি আশা করি আপনারা কিছু মনে করবেন না, অনেকদিন পর আমরা এখানে বসার সুযোগ পেয়েছি। তাই অনেক সময় আমরা পরিষদ বিধি না মেনে অনেক কথা বলে ফেলেছি, কিছুদিন আপনাকে এটুকু সহ্য করতে হবে। কারণ সদস্যরা বহুদিন পর এখানে বসবার সুযোগ পেয়েছেন। সকলে এখন পর্যন্ত সব জিনিস দেবার সময় পান নাই- তাই মাঝে মাঝে দুই একটা কথা কেউ কেউ এদিক ওদিক বলে ফেলেছেন।

আমি আপনার মাধ্যমে গণপরিষদ সদস্যদের বলতে চাই যে, আপনারা কটাক্ষ করে কেউ কাউকে কিছু বলবেন না। কারও প্রতি কটাক্ষ করে কথা বলা উচিৎ নয়। কোন সদস্য অন্য কোন সদস্যকে সম্বোধন করে কথা বলতে পারেন না। সকল মেম্বারকেই জনাব স্পীকারকে সম্বোধন করতে হবে-এটা সকল সদস্যের জানা দরকার।

আমি আবার সদস্যদের অনুরোধ করছি আপনারা কারো প্রতি কটাক্ষ করে এই পরিষদে কোন কথা বলবেন না। আমার আর একটি আবেদন এই যে, আপনারা যে গণপরিষদের সদস্য, একথা যেন ভুলে না যান। আমি আপনার মাধ্যমে সদস্যদের আরও বলতে চাই যে, পরিষদে একজন বলতে উঠলে সঙ্গে সঙ্গে আর পাঁচজন দাঁড়িয়ে বিশৃঙ্খলা সৃষ্টি করবেন না। এতে পরিষদের শৃঙ্খলা নষ্ট হবে এবং এর দ্বারা প্রমাণিত হবে যে, আমরা পরিষদ সদস্য হবার যোগ্য নই। আমি আশা করি পরিষদের সকল সদস্য সেদিকে খেয়াল রাখবেন। আপনি যেভাবে দুই দিন পরিষদের কাজ চালিয়েছেন, তার জন্য এই গণপরিষদের পক্ষ থেকে আপনাকে ধন্যবাদ জানাচ্ছি। পরিষদ সদস্যরা যেভাবে দুই দিন ধৈর্য্য ধারণ করে পরিষদের কাজ চালাতে সাহায্য করেছেন, তাতে তাঁদেরকেও আপনার মাধ্যমে ধন্যবাদ জানাচ্ছি। আওয়ামী লীগ পার্লামেন্টারী পার্টির আজ যে সভা হবে, সেখানে দরজা বন্ধ করে সব বিষয় আলোচনা করতে পারবেন। আজ বিকাল ৫টায় ইঞ্জিনিয়ার্স ইনস্টিটিউটে সভা হবে। সেখানে পার্টির সব বিষয় আলোচনা করা হবে।

আপনারা জানেন আমাদের এখানে একজন মাত্র ন্যাপের সদস্য আছেন। তিনি কিছু বেশী সুযোগ পেতে পারেন। সে জন্য আপনারা কিছু মনে করবেন না, তাঁকে সুযোগ পেয়েছেন। তিনি ভবিষ্যতে নিশ্চই আরও সুযোগ পাবেন। এখানে কথা বলার অধিকার সকলেরই থাকবে। গণপরিষদে বিরোধী দল বলে কোন জিনিস নাই। এটা আফসোসের বিষয়। গণতন্ত্রের বিরোধী দল থাকা উচিৎ। নির্বাচন হয়েছে, বিরোধী দলের সদস্যরা অধিক সংখ্যক নির্বাচিত হতে পারেন নাই। সে জন্য দুঃখ করে লাভ নাই। ভবিষ্যতে নিশ্চয়ই এখানে বিরোধী দল হবে। আপনারা দেখতে পাবেন। বিরোধী দল হলে আমি তাদের স্বাগত জানাব।

পরিশেষে আমি এখানকার সকল কর্মচারীকে পরিষদের পক্ষ থেকে ধন্যবাদ জানাচ্ছি। গণপরিষদের সংখ্যাগরিষ্ঠ দলের নেতা হিসেবে সদস্যদের ধন্যবাদ দেওয়ার এখানে প্রয়োজন নাই। তবে সদস্যরা যেভাবে সহযোগিতা করেছেন, সে জন্য আমি সদস্যদের ধন্যবাদ জানাচ্ছি। আপনাদের সকলকে ধন্যবাদ; খোদা হাফেজ।

Read Previous

১৯৭২ সালের ১০ এপ্রিল বাংলাদেশ গণপরিষদে বঙ্গবন্ধুর ভাষণ

Read Next

১৯৭২ সালের ১লা মে জাতির উদ্দেশ্যে বঙ্গবন্ধুর ভাষণ