ভারতবর্ষের স্বাধীনতা সংগ্রামের নেতাদের চেয়েও বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান বড় নেতা – অটল বিহারী বাজপেয়ী

অটল বিহারী বাজপেয়ী, ভারতের সাবেক প্রধানমন্ত্রী মন্তব্য করেছেন – ভারতবর্ষের স্বাধীনতা সংগ্রামের নেতাদের চেয়েও বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে বড় নেতা । সশ্রদ্ধ চিত্তে বঙ্গবন্ধুর নেতৃত্বের প্রশংসা করে তিনি বাংলাদেশি সাংবাদিক মুসা সাদিককে দেওয়া সাক্ষাৎকারে বলেছেন, ‘ভারতের স্বাধীনতা সংগ্রামে যারা প্রথম সারির নেতা ছিলেন এবং যাদের নেতৃত্বে ভারত স্বাধীনতা অর্জন করেছিল, তাদের সবার চেয়ে শেখ মুজিব অনেক বড় নেতা ছিলেন। ভারতের নেতাজি সুভাষ বসু, যিনি বাংলাদেশের মতো মুক্তিযুদ্ধ করে ভারতের আজাদি ছিনিয়ে আনতে চেয়েছিলেন, একমাত্র তার সঙ্গে তোমাদের নেতার (বঙ্গবন্ধুর) তুলনা হতে পারে।’

১৯৯৬ সালের ২৫ মে, ভারতে বসে বাংলাদেশ ও মুক্তিযুদ্ধ নিয়ে খোলামেলা কথা বলেন অটল বিহারী বাজপেয়ী:

ভারতের সাবেক প্রধানমন্ত্রী অটল বিহারী বাজপেয়ী মন্তব্য করেছেন - ভারতবর্ষের স্বাধীনতা সংগ্রামের নেতাদের চেয়েও বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে বড় নেতা, Atal bihari vajpayee spoke about bangabandhu sheikh mujibur rahman
ভারতের সাবেক প্রধানমন্ত্রী অটল বিহারী বাজপেয়ী মন্তব্য করেছেন – ভারতবর্ষের স্বাধীনতা সংগ্রামের নেতাদের চেয়েও বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে বড় নেতা

বাংলাদেশি সাংবাদিককে তিনি আরো বলেন, ‘তোমাদের মুক্তিযোদ্ধাদের জানিয়ে দিও যে- আমি বলেছি, তোমাদের শেখ মুজিবুর রহমান, বিশ্বের বহু নেতার চেয়ে অনেক বড় নেতা। তিনি পাকিস্তানের মোহাম্মদ আলী জিন্নাহর চেয়েও অনেক বড় নেতা। এমনকি ভারতের স্বাধীনতা সংগ্রামে যারা প্রথম সারির নেতা ছিলেন এবং যাদের নেতৃত্বে ভারত স্বাধীনতা অর্জন করেছিল, তাদের সবার চেয়ে শেখ মুজিব অনেক বড় নেতা ছিলেন।‘ উল্লেখ্য যে, ১৯৭১ সালে ভারতের লোকসভায় বাংলাদেশের স্বীকৃতির প্রস্তাবটি অটল বিহারী বাজপেয়ীই প্রথম উত্থাপন করেছিলেন।

বঙ্গবন্ধুকে নিয়ে তার এই মন্তব্যের ব্যাখ্যা জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘তুমি কী হে ছেলে, ইতিহাস পড়োনি? তুমি একজন মুক্তিযোদ্ধা, তুমি তো মুক্তিযুদ্ধ দেখেছ, কিন্তু কে তোমাকে মুক্তিযুদ্ধ দেখিয়েছে? কে তোমাকে মুক্তিযোদ্ধা করেছে? তোমাদের জাতির পিতা শেখ মুজিবুর রহমান। কিন্তু ভারতের স্বাধীনতা অর্জনের জন্য আমরা কোনো মুক্তিযুদ্ধ করিনি। আমাদের নেতারা আমাদের মুক্তিযোদ্ধা হতে দেয়নি।

আমাদের নেতারা সমঝোতা করে, সব অধিকার ও দাবি- দাওয়া ছেড়ে দিয়ে, ব্রিটিশ সরকারের কাছে আত্মসমর্পণ করে, ভারতের স্বাধীনতা উপহার হিসেবে নিয়েছেন। কিন্তু তোমাদের বীর বাঙালি জাতির জনক শেখ মুজিবুর রহমান মুক্তিযুদ্ধ করে তোমাদের স্বাধীনতা ছিনিয়ে এনেছেন। আফ্রো-এশিয়ার দেশে দেশে, পাহাড়ে- জঙ্গলে মুক্তিযুদ্ধের জন্য যারা আজও লড়ছে, তারা তার (বঙ্গবন্ধুর) নামে জয়ধ্বনি দিচ্ছে। তার নামের ধ্বনি দিয়ে তারা মুক্তিযুদ্ধের প্রেরণা লাভ করছে। এই একটি ঐতিহাসিক কারণে তোমাদের জাতির পিতা পাকিস্তান ও ভারতের শীর্ষ সব নেতাকে অতিক্রম করে গেছেন। সত্য খুবই নির্মম, সেই নির্মম সত্য আমি উচ্চারণ করলাম। আমার যথেষ্ট বয়স হয়ে গেছে। কত দিন বেঁচে থাকব জানি না।

অটল বিহারী বাজপেয়ীকে ভারতীয় রাজনীতির প্রবাদপুরুষদের একজন বলে গণ্য করা হয়। তিনি যখন তরুণ, তখনই তার বক্তব্য শুনে পন্ডিত জওহরলাল নেহেরু বলেছিলেন, ‘বাজপেয়ী একদিন প্রধানমন্ত্রী হবে।‘ সেই বাণী সত্য হয়েছিল। দল-মত নির্বিশেষে ভারতের রাজনীতিতে সর্বজন শ্রদ্ধেয় ব্যক্তি হিসেবে সন্মানিত হয়েছেন বাজপেয়ী। ভারতবর্ষের বিভাজন থেকে শুরু করে বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধ, সবকিছুর সঙ্গেই জড়িয়ে আছেন তিনি।

এমন একজন মহীরূহ ব্যক্তিত্ব নিজের জীবন সায়াহ্নে এসে অকপটে নির্মম সত্যের স্বীকারোক্তি দিয়ে গেছেন। এক জীবনে দেখা নেতাদের মধ্যে তিনি বঙ্গবন্ধুকেই শ্রেষ্ঠ নেতা হিসেবে অভিহিত করেছেন। বঙ্গবন্ধুর মতো তীব্র জাতীয়তাবাদী নেতা বিশ্বের ইতিহাসে আর নেই, যিনি কিনা একইসঙ্গে গণতান্ত্রিক পদ্ধতিতে দীর্ঘ দুই যুগ ধরে সংগ্রাম চালিয়ে গেছেন। এমনকি একটা জাতিকে গোলামি থেকে মুক্ত করার পর গণতন্ত্রকে অর্থবহ করে তুলে মানুষের মুখে হাসি ফোটানোর উদ্যোগ নিয়েছেন।

অটল বিহারী বাজপেয়ী [ হিন্দি: अटल बिहारी वाजपायी, ২৫ ডিসেম্বর ১৯২৪ – ১৬ আগস্ট ২০১৮] ভারতের প্রাক্তন প্রধানমন্ত্রী (১১তম)। বাজপেয়ী ১৯২৪ সালের ২৫শে ডিসেম্বর মধ্যপ্রদেশের গোয়ালিয়রে একটি হিন্দু ব্রাহ্মণ পরিবারে জন্মগ্রহণ করেন।[৫] তার মাতা কৃষ্ণ দেবী ও পিতা কৃষ্ণবিহারী বাজপেয়ী। তার বাবা তাদের নিজ শহরে একটি স্কুলের শিক্ষক ছিলেন। তাঁর পিতামহ শ্যাম লাল বাজপেয়ী উত্তর প্রদেশের আগ্রা জেলার বাতেশ্বর গ্রামে তাঁর পৈতৃক গ্রাম থেকে গোয়ালিয়রের কাছে মোরেনায় চলে এসেছিলেন। তিনি কানপুরের ডিএভি কলেজ থেকে রাষ্ট্রবিজ্ঞানে এমএ পাশ করেন।

আর্য সমাজ আন্দোলনের যুব শাখা আর্য কুমার সভায় যোগদানের মধ্য দিয়ে গোয়ালিয়রে তার সক্রিয়তা শুরু হয়, যেখানে তিনি ১৯৪৪ সালে সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত হন। তিনি ১৯৩৯ সালে রাষ্ট্রীয় স্বয়ংসেবক সংঘ (আরএসএস) একটি স্বয়ংসেবক বা স্বেচ্ছাসেবক হিসেবে যোগদান করেন। ১৯৫৭ সালের ভারতীয় সাধারণ নির্বাচনে বাজপেয়ী ভারতীয় সংসদের নিম্নকক্ষ লোকসভা নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেন। তিনি নির্বাচনে মথুরার রাজা মহেন্দ্র প্রতাপের কাছে পরাজিত হন কিন্তু বলরামপুর থেকে জয়লাভ করেন।

১৯৯৬ সালে তিনি প্রথমবারের মত মাত্র ১৩ দিনের জন্য প্রধানমন্ত্রী নির্বাচিত হন। এরপর ১৯৯৮ সাল থেকে ২০০৪ সাল পর্যন্ত প্রধানমন্ত্রী ছিলেন। প্রথম ব্যক্তি হিসেবে তিনি ভারতীয় জনতা পার্টির নেতা হিসেবে এবং ভারতীয় জাতীয় কংগ্রেস এর বাইরে থেকে পূর্ণ মেয়াদে ভারতের প্রধানমন্ত্রীর দায়িত্বে ছিলেন। ১৯৯৮ সালে রাষ্ট্র ক্ষমতায় আসার তেরো মাস পর ১৯৯৯ সালের এপ্রিল মাসে জয়ললিতা অটলজির সরকারের উপর থেকে সমর্থন প্রত্যাহার করে নিলে আস্থাভোটে মাত্র একভোটের ব্যবধানে হেরে তার সরকারকে পদত্যাগ করতে হয়। একজন কবি এবং লেখক হিসেবেও তিনি বিখ্যাত ছিলেন।

#বঙ্গবন্ধু #Mujib100 #SheikhMujib #AtalBihariVajpayee

আরও পড়ুন:

উইকিপিডিয়া : অটল বিহারী বাজপেয়ী

মুজিব – বঙ্গবন্ধু : টুঙ্গিপাড়ার ছোট্ট খোকা থেকে বিশ্ব মানবতার মহান নেতা [ বঙ্গবন্ধু ও বাংলাদেশ ]