Breaking News :

জামায়াত-শিবির তরিকার ইসলাম যদি এত ভাল, তবে ফল এত বিষাক্ত কেন?

ভারতবর্ষে আমাদের পূর্বপুরুষদের কাছে কালেমা বয়ে এনেছিল কারা?
কাদের হাত ধরে মুসলমান হয়েছিলো এদেশের অধিকাংশ মানুষ?

সেই – অলি, আউলিয়া, পীর, ফকিররা জয় করেছিল – মানুষ।
বসেছিল মানুষের হৃদয়ে।
নিজেদের উন্নত চরিত্র দিয়ে মানুষকে আকৃষ্ট করেছিলো।
ভালবাসা দিয়ে, প্রেম দিয়ে, মমত্ব দিয়ে – সবাইকে আপন করে নিয়েছিলো।
তাদের চরিত্রের কারণে, আদর্শের কারণে – সকল ধর্মের মানুষ তাদেরকে হৃদয়ে ধারণ করেছে।
হজরত খাজা মইনুদ্দিন চিশতী (রহ:) সকল ধর্মের মানুষের কাছে হয়ে উঠেছিলেন – গরিবে নেওয়াজ।

এসব অর্জনের জন্য –
তাদের কি কোনদিন অস্ত্র ধরতে হয়েছে?
মানুষ হত্যা করতে হয়েছে?
রাষ্ট্রক্ষমতায় বসতে হয়েছে?
নিজেদের অর্থনীতি তৈরি করতে হয়েছে?
অথচ – তারাই সবচেয়ে বেশি মানুষকে ইসলাম কবুল করাতে পেরেছিলেন।

আজকের জামাত-শিবিরে এবং তাদের উত্তরসূরি (আলেমবাদী – সালাফি, ওহাবিরা) নিজেদেরকে ইসলামের ত্রাণকর্তা দাবী করে।
কিন্তু তারা কয়জন মানুষকে ইসলামের দিকে টানতে পেরেছে?
কয়জন মানুষ বংশপরম্পরায় মুসলিম ছাড়া, নতুন করে ইসলাম কবুল করেছে?

অথচ জামাতিরা ধর্মের নামে –
বারবার অস্ত্র ধরেছে।
মানুষ হত্যা করেছে।
রাষ্ট্রক্ষমতায় বসতে চেষ্টা করেছে।
নিজেদের অর্থনীতি তৈরি করতে চেয়েছে।
কিন্তু – বিধর্মীদের ইসলাম গ্রহণ করায় তাদের অবদান ১% ও না।
বরং ইসলামের অনুসারীদের অসংখ্য ভাবে বিভক্ত করাতে, তাদের অবদান সবচেয়ে বেশি।

এসব আলেম নামের লোকগুলো – এর নামে ফতোয়া দেয়, ওকে মুরতাদ বলে, তাকে নাস্তিক বলে।
ধর্মের নামে লোকের মধ্যে শত্রুতার জন্ম দেয়। অকারণে বিভক্ত করে।
ওরা ইসলামকে ক্রমশ – শান্তির ধর্ম থেকে, সন্ত্রাসের ধর্ম হিসেবে বদলে দিয়েছে।

আমার মত মূর্খ মানুষের সামান্য প্রশ্ন:
জামাত-শিবির তরিকার ইসলাম যদি এত ভাল, তবে ফল এত বিষাক্ত কেন?

 

 

এডিট- এসএস

Read Previous

বাংলাদেশের আইন: আইন আছে, আইন নাই

Read Next

পাকিস্তান রাস্ট্রের উর্দু ভাষা চাপানোর কারণ